1. admin@gonopotrika.com : admin :
শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ০৫:৪৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ডিমলায় বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন। কুড়িগ্রামে শিশুদের প্রতি সহিংসতা বন্ধে স্থানীয় স্টেক হোল্ডারদের সাথে সংলাপ অনুষ্ঠিত আত্রাইয়ে জয় বাংলা ঐক্য পরিষদের কমিটি গঠন সভাপতি চঞ্চল!! সম্পাদক সজল ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বিশ্বের সকলের সাথে বানিজ্যিক সম্পর্ক দৃঢ় করতে চায় ভোলা সদর উপজেলায় এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু আমতলীতে বিদ্যালয় চলাকালীন সময়ে প্রাইভেট পড়াচ্ছেন সহকারী শিক্ষক নওগাঁর বদলগাছীতে ছোট যমুনা নদী গোসল করতে গিয়ে নিখোঁজ, অতঃপর ১ দিন পর লাশ উদ্ধার রাজশাহী শিরোইল বাসস্ট্যান্ড এলাকা হতে ২২ জুয়ারী’কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৫ ধামইরহাটে ৩ মাস ধরে গৃহবন্ধী অসহায় এক পরিবার পুকুরে সাতার কেটে বের হন বাড়ী থেকে মুসলিম মহিলাদের খোরপোশ ন্যায় অধিকার, খয়রাতি নয়, সাফ জানিয়ে দিল ভারতের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্ট

ভোলার চরফ্যাশনে অবৈধভাবে তৈরি হচ্ছে এসিড দিয়ে ব্যাটারির পানি

  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ১৫ জানুয়ারি, ২০২৪
  • ১৮৫ বার পঠিত

মোঃ রাফসান জানি, জেলা প্রতিনিধি (ভোলা):

ভোলার চরফ্যাশনের একটি বাগানের ভেতরে অবৈধভাবে তৈরি হচ্ছে বিভিন্ন বেনামী ব্যাটারির পানি,বিক্রি হচ্ছে ভোলা জেলার বিভিন্ন বাজার গুলোতে। স্থায়ী এক সূত্রে জানা যায় ওই পানি প্লাস্টিকের জেরে ভরে বিভিন্ন নামিদামি ব্রান্ডের নামের আগে ছোট আকারে নাম সংযুক্ত করে সিল লাগিয়ে বাজারজাত করছে।এসব জেরের পানি বিভিন্ন যানবাহনের ব্যাটারীতে ব্যবহার করা হচ্ছে।খনিজ পদার্থ যুক্ত এই প্রাণীর কারণে দামি গাড়ির ব্যাটারি দ্রুত নষ্ট হয়।সরজমিনে দেখা যায় চরফ্যাশন উপজেলার জিন্নাগর ইউনিয়নে দাসকান্দি গ্রামের ৬ নং ওয়ার্ডে অবস্থিত কারখানাটি।

স্থানীয় বাসিন্দাদের কাছ থেকে জানা যায় এ কারখানার মালিক নুর ইসলাম ও শিহাবউদ্দিন,তারাই তৈরি করছে এসব বেনামী ব্যাটারির পানি।নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পাঁচ ব্যক্তি বলেন নুর ইসলাম ও শিহাবউদ্দিন, সালফিউরিক নামক এসিড দিয়ে তৈরি করেন ব্যাটারির পানি। প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে বছরের পর বছর তৈরি করে যাচ্ছেন এসব পানি,যার দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে ব্যাটারি চলিত যানবাহন। তাছাড়া এসিড এর মত পদার্থ বাহিরে রাখে যা ক্ষতির কারণ। তারা আরো বলেন কিছুদিন আগে কারখানাটি বন্ধ করে দেওয়া হয় তারপরে সাময়িক সময় বন্ধ থাকলেও পুনরায় তৈরি করা হচ্ছে অবৈধ ব্যাটারির পানি।

অবৈধ ব্যাটারির পানির কারখানাগুলো সরকারের রাজস্ব কর ফাঁকি দিয়েই চালিয়ে যাচ্ছে এসব অপকর্ম।যেখানে এসব কারখানার উৎপাদনকৃত পণ্যের জন্য প্রয়োজন ফায়ার লাইসেন্স, এসিড লাইসেন্স, ট্রেড লাইসেন্স, আয়কর, পরিবেশ ছাড়পত্র ইত্যাদি।তবে এ কারখানার মালিকের নেই কোন কাগজপত্র।

কারখানার মালিক শিহাবউদ্দীন জানান এ সমস্ত কাগজপত্রের জন্য আবেদন করা হয়েছে খুব শীগ্রই তারা হাতে পাবে। কিন্তু দেখাতে পারেননি কোন আবেদনের রশিদ বা কাগজ।

Facebook Comments Box
এ জাতীয় আরও খবর
© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩ গণ পত্রিকা
Theme Customized By Shakil IT Park